1. kamrulcse1@gmail.com : janatarkontho_24 : জনতারকণ্ঠ
  2. mostufakamalbd@gmail.com : মোস্তফা কামাল : মোস্তফা কামাল
  3. shariful.ja81@gmail.com : মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম : মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :
আপনার আশপাশে ঘটে যাওয়া যেকোনো ঘটনা বা যেকোনো বিষয়ে জনতারকণ্ঠে লিখে পাঠান।। লেখা পাঠাতে ইমেইল করুন : newsjanatarkontho@gmail.com

কাদের-ফখরুলের বাকযুদ্ধ তত্ত্বাবধায়ক’ সরকার ব্যবস্থা

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৪ অক্টোবর, ২০২১, সময়: ৬:১৩ pm
  • ৭২ বার

জনতার কণ্ঠ ২৪.কম

নতুন করে নির্বাচন কমিশন গঠনের প্রক্রিয়া নিয়ে আলোচনা চলছে। নির্বাচন এখনো বহুদূর। তবে তত্ত্বাবধায়ক ‘ সরকার’ ইস্যু নিয়ে আবারো আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে বাকযুদ্ধ শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলছেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার আর কোনো দিন ফিরে আসবে না। অন্যদিকে বিএনপির নেতারা বলছেন আগামী নির্বাচন আওয়ামী লীগের অধীনে নয়, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই করতে হবে। এই বাকযুদ্ধ দুই দলের সাংগঠনিক পর্যায়ের দ্বিতীয় ব্যক্তিরা করছেন।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, দেশে নির্বাচন-নির্বাচন খেলা আর হবে না। নির্বাচন নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই হতে হবে। নিরপেক্ষ সরকার এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে ছাড়া বিএনপি কোনো নির্বাচন মেনে নেবে না। গত শনিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সরকারের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, মানুষের ভাষা পড়েন, দেয়ালের ভাষা পড়েন।তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিধান করে ক্ষমতা থেকে সরে যান। নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া আমরা কোনো নির্বাচনে অংশ নেব না।

অন্যদিকে, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সরকারের সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিএনপির দাবি প্রসঙ্গে বলেছেন, পৃথিবীর অন্যান্য গণতান্ত্রিক দেশে যেভাবে নির্বাচন হয়, বাংলাদেশেও সময়মতো সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মীমাংসিত বিষয় নিয়ে অযথা মাঠ গরম করবেন না। ২ অক্টোবর নিজের সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির জনসমর্থনের জোয়ার তো গত ১৩ বছরে কোনো নির্বাচনে দেখা যায়নি। তারা ভরাডুবির ভয়ে এখন নির্বাচনবিমুখ। তাই রাজপথ আর ভোটের ময়দান ছেড়ে গণমাধ্যম এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় রাজনীতিকে সীমাবদ্ধ করে রেখেছেন। বিএনপির তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মামার বাড়ির আবদার উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, নিরপেক্ষ তত্বাবধায়ক সরকার গঠন করলে নাকি তারা নির্বাচনে অংশ নেবেন। আসলে বিএনপি ভালো করেই জানে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিষয়টি একটি মীমাংসিত বিষয়। উচ্চ আদালতের রায়ের আলোকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল হয়েছে। এ পদ্ধতি ছিল একটি অন্তর্বর্তীকালীন ব্যবস্থা, দীর্ঘমেয়াদে তত্ত্বাবধায়ক সরকার চলতে পারে না। আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ চাঁদপুরে এক দলীয় সমাবেশে বলেছেন, বাংলাদেশে তত্ত্বাবধায়ক সরকার আর কখনো হবে না। যদি কোনো রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে সেটা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকারের মধ্যে পড়ে। আবার বিএনপির স্থানীয় কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, আগামী নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই হবে। তত্তাবধায়ক সরকার ইস্যুতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাদের এই বাকযুদ্ধ কতদূর পর্যন্ত গড়ায় সেটা দেখার জন্য দেশবাসী অপেক্ষা করছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..