1. kamrulcse1@gmail.com : janatarkontho_24 : জনতারকণ্ঠ
  2. mostufakamalbd@gmail.com : মোস্তফা কামাল : মোস্তফা কামাল
  3. shariful.ja81@gmail.com : মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম : মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম
বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৯:০১ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :
আপনার আশপাশে ঘটে যাওয়া যেকোনো ঘটনা বা যেকোনো বিষয়ে জনতারকণ্ঠে লিখে পাঠান।। লেখা পাঠাতে ইমেইল করুন : newsjanatarkontho@gmail.com
শিরোনাম :
ঐতিহাসিক পলাশী দিবসে সোশ্যাল মিডিয়ায় যা লিখছেন নেটিজেনরা দেশে করোনায় প্রাণ গেল আরো ৮৫ জনের, নতুন শনাক্ত ৫৭২৭ দুই হাত ও এক পা উদ্ধারের পর দেহ উদ্ধার : মস্তক খুঁজছে পুলিশ সখিপুরে আনসার-ভিডিপির বৃক্ষ রোপন সখিপুরে এক অসহায় নির্যাতিত নারী থানার এস আই কে প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে টাঙ্গাইল ও এলেঙ্গা পৌর সভায় সাত দিনের কঠোর বিধিনিষেধ জারি টাঙ্গাইলে দ্বিতীয় ধাপে ১১৩০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার করটিয়ায় অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই, ১২ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি সেই অমির বাড়ি টাঙ্গাইলে, এলাকাবাসীর কাছ থেকে জানা গেল আদ্যোপান্ত টাঙ্গাইল বিএনপির উদ্যোগে বৃক্ষ রোপন

ভূয়া সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদ

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৫ জুন, ২০২১, সময়: ১০:৫০ am
  • ৭৯ বার

জনাব আপনার দৈনিক বানিজ্য প্রতিদিন পত্রিকায় একটি ভূয়া সংবাদ প্রকাশ করা হয় গত ২৯মে/২০২১ ইং বিকাল ৪টা ৪৩ ঘটিকায় ।আমি মো.বেলায়েত হোসেন এই অসত্য, মিথ্যা,ভিত্তিহীন, উদ্দেশ্যপ্রনোদিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জ্ঞাপন করছি। নিম্মে এর ব্যাখ্যা দেওয়া হলো-

১.লক্ষ্মীপুর পৌর এলাকায় জমি-সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসী হামলায় তিনজন আহত হয়েছেন। এ সময় এক লাখ দশ হাজার টাকার স্বর্ন লুট করে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার(২৮মে/২১) লক্ষীপুর পৌর ১৪নং ওয়ার্ড এর বাঞ্চানগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন শাহীন আক্তার,বখতিয়ার,শাহেদুল হক। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে লক্ষীপুর সদর হাসপাতালে ভতি করেন। লক্ষীপুর পৌর এলাকায় জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসী হামলায় যে তিনজন আহত হয়েছেন-তাদের নাম উল্লেখ না করে, যারা মেরেছে বরং তাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। ওই হামলায় প্রকৃতপক্ষে যারা আহত হয়েছে,সেই আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে লক্ষীপুর সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসা নিয়েছেন আহত সাহেলা আক্তার,সাদ জিয়াউল ফারুক ও সাদমু্ইন।সাহেলা আক্তারের হাতের বালা টেনে হেচড়ে ছিনিয়ে নেয় মোবারক হোসেন ও শাহীন আক্তার। যার আনুমানিক বাজারমূল্য প্রায় এক লাখ চল্লিশ হাজার টাকা। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার(২৬মে/২১ইং) লক্ষীপুর পৌর ১৪নং ওয়ার্ড এর বাঞ্চানগর গ্রামে,অথচ মিথ্যা প্রতিবেদনে ঘটনা ঘটার তারিখ দেখানো হয়েছে শুক্রবার(২৮মে/২১)।

২. উক্ত ঘটনায় মোবারক হোসেন বাদী হয়ে লক্ষীপুর সদর থানায় শনিবার(২৯মে/২১ইং) চারজনকে আসামী করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এতে আসামী করা হয়েছে-বেলায়েত হোসেন,সাদ জিয়াউল ফারুক,সাদমুইন হোসেন,শাহেলা আক্তারসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫জন।ওই ঘটনায় সাদ জিয়াউল ফারুক বাদী হয়ে লক্ষীপুর সদর থানায় বুধবার(২৬মে/২১ইং) ৫জনকে আসামী করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এতে আসামীরা হলেন-মোবারক হোসেন,শাহীন আক্তার,গুলবদ্দিন হেকমতিয়া,ছুমাইয়া আক্তার,বখতিয়ার ও অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫জন। প্রতিবেদনে শুধু একটি অভিযোগের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

৩. এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে,ওই গ্রামের বেলায়েত হোসেনের বসতবাড়ির জমি থেকে বেদখল ও উচ্ছেদ করার জন্য তারই মেঝ ভাই মোবারক হোসেন দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা করে আসছে। এ নিয়েই ঘটনা ঘটেছে। বেলায়েত হোসেন যেন তার পৈত্রিক জমিতে আসতে না পারে সেজন্য তারই মেঝ ভাই দীর্ঘ দিন করে পাঁয়তারা করে আসছে এবং বেলায়েত ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের উপর একের পর এক হামলা-মামলা করে যাচ্ছে।

৪.মিথ্যা ওই প্রতিবেদনে মোবারক হোসেন জানায়, জমির মালিকানা দাবি করে বুধবার বেলা ২ঘটিকার দিকে বেলায়েত হোসেন ও তার ছেলে সাদ জিয়াউল হকের নেতৃত্বে ৪/৫জন ধারালো দা.বটি দিয়ে হামলা চালায়। হামলাকারীরা প্রথমে আমাদের বসবাসকৃত জমি থেকে অবৈধভাবে আমাদেরকে উচ্ছেদের চেষ্টা করে। এসময় তাদের বাধা দিতে গেলে সন্ত্রাসীরা আমাদের পরিবারের লোকজনের উপর অতকিত হামলা চালায়। মোবারক আরো বলেন, অভিযুক্ত বেলায়েতের সঙ্গে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে স্থানীয়ভাবে একাধিক বৈঠক হয়, তারা সমাজ ও রাস্ট্রের কোন আইনকে তোয়াক্কা করে না। এ বিষয়ে সাদ জিয়াউল ফারুক বলেন, জমির মালিকানা দাবি করে বুধবার বেলা ২ ঘটিকার দিকে মোবারক হোসেন ওতার ছেলে বখতিয়ারের নেতৃত্বে ৪/৫জন ধারালো দা,বটি, লোহার রড,নিনজা চাকু নিয়ে হামলা চালায়।হামলাকারীরা প্রথমে আমাদের বসবাসকৃত জমি থেকে অবৈধভাবে উচ্ছেদের চেষ্টা করে। এসময় তাদের বাধা দিতে গেলে সন্ত্রাসীরা আমাদের পরিবারের লোকজনের উপর অতকিত হামলা চালায়। বেলায়েত হোসেন বলেন, অভিযুক্ত মোবারকের সঙ্গে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে স্থানীয়ভাবে ষষ্ঠবার বৈঠক হয়,কিন্তু সে সমাজ ও রাস্ট্রের কোন আইনকেই তোয়াক্কা করে না। বরাবরই বৃদ্ধাঙ্গলি দেখিয়ে আসতেছে। অভিযুক্ত মোবারক হোসেনের নামে রাস্ট্রের সম্পদ নষ্ট করা,সরকারি গাছ কাটা, সরকারি অফিসে অগ্নি সংযোগ করা,সরকারি কাজে বাধা দেওয়া,নাশকতামূলক কাজ ইত্যাদি করে আসতেছে। তার নামে বর্তমানে পাঁচটি মামলা রয়েছে, এসব নাশকতা,রাস্ট্রদ্রোহী মামলায় সে জামিনে এসে পূনরায় বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যক্রম ও সরকার বিরোধী বিভিন্ন কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। সে লক্ষীপুর পৌর ১৪নং ওয়ার্ড জামায়াতে ইসলামির সভাপতি। সে সমাজ ও রাস্ট্রের কোন আইনকে তোয়াক্কা করে না এবং বর্তমান সরকারকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে বিভিন্ন সভা-সমাবেশ ও চা স্টলে বিভিন্ন কু-রুচিপূর্ন কথা-বার্তা বলে থাকে। তাঁর নামে রাস্ট্রদ্রোহী ৫টি মামলা রয়েছে। নিম্মে কয়েকটি মামলা উল্লেখ করা হলো-

(1.) Lakshimpur Polli Biddot Office Burning case No 341/13,
(2.) Dalalbaza Water Development Board Office Burning Case no. 170/13,

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..